1টি নিশ্চিত সাফল্য ও সাফল্যের গল্প।

গল্প ও সাফল্য

আমাদের জীবনের, প্রতিটি মুহূর্তে আমরা হারি, আমরা জিতি। কিন্তু সেই হার-জিত কে আমরা কখনোই স্বাভাবিক ভাবে মেনে নিতে পারি না।

এই হারজিত শুরু হয় আমাদের একেবারে ছোট বেলা থেকেই।

সাফল্যের গল্প
সাফল্যের গল্প

যখন আমরা স্কুলে পড়ি, তখন যে পরীক্ষা হয় । সেই পরীক্ষায় আমরা একটা স্থান লাভ করি। সেটা সংখ্যা দিয়ে বিচার করা হয়। ধরে নেওয়া হয় যারা একেবারে প্রথমের দিকে থাকে তারা বেশি সফল। আর যারা থাকে সংখ্যার একেবারে পিছনে দিকে তারা জীবনে কম সফল। অর্থাৎ সাফল্য ও ব্যর্থতা মাপা হয় সংখ্যার নিরীখে।

এই সমীকরণটাই অনেকটাই বদলে যায়, যখন আমরা অনেকটা বড় হয়ে সেইসব নিকাশ মেলাতে থাকি।

তখন দেখা যায় আমাদের স্কুল জীবনে যারা পড়াশোনায় সেরকম ভালো ছিল না, হয়তো কোনরকমে পাস করতো। ভালো রেজাল্ট করতে পারত না। মাস্টারমশাইদের চোখের কাঁটা ছিল।

পরবর্তীকালে এরকম অনেক দেখা গেছে, স্কুলে ব্যর্থ বা তুলনামূলকভাবে পড়াশোনায় কম ভালো ছাত্র ছাত্রী জীবনে অনেক বড় হয়েছে। বা জীবনে অনেক সাফল্য লাভ করেছে।

পাশাপাশি এটাও দেখা যায়, যারা সেই সময় পড়াশোনায় বেশ ভালো ছিল তারা, হয়তো সেভাবে জীবনে কিছু করে উঠতে পারে নি। এ থেকে একটা জিনিসই প্রমাণিত হয়। কোন বিষয়ে এগিয়ে বা পিছিয়ে থাকলে, পরবর্তী জীবনে ও তার অবস্থান যে সেই রকমই হবে তা কিন্তু নয় !

বিজনেেসের ক্ষেত্রেও সেরকম ।

আমরা যখন নতুন কোন বিজনেস শুরু করি। তখন আমাদের বুকে থাকে বহু আশা। চোখে থাকে স্বপ্ন। তবে অভিজ্ঞতা থাকে খুবই কম।

কিন্তু বাস্তবে যখন আমরা দেখি আমাদের দেখা স্বপ্নের সঙ্গে বাস্তবের অনেক ফারাক হয়ে যাচ্ছে। ব্যবসাটা কোনো ভাবেই দাঁড়াচ্ছে না। বা আমি যেভাবে চাইছি সেভাবে এগোচ্ছে না। তখন মনে হয়, এই বিজনেস আর চলবে না। এবার ব্যবসাটা বন্ধ করে দিতেই হবে।

কারণ আমার আশপাশের যে সমস্ত মানুষ বিজনেস করছে, তাদের বিজনেস ভীষণ ভীষণ ভালো হচ্ছে । তাদের বিজনেস এক্সপ্রেসের এর মতন দৌড়াচ্ছে ! আর ,আমারটাই থমকে থমকে যাচ্ছে।

আমারটা কেন ওদের মতো হচ্ছে না ?

আমার ভুল কোথায় ?

আমার সাথে কেন এমন হচ্ছে ?

এরকম হাজারটা প্রশ্ন আমাদের মাথায় ঘুরপাক খায়। মাথাটা ঘুরতে থাকে।

আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি, আর নয়। এবার অন্য কিছু একটা করতে হবে !

এরকমটা আমাদের অনেকেরই মনে হয়। এবং আমরা চটজলদি একটা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি।

এই গল্পটা আমি সংগ্রহ করেছি আমার ফেসবুক ফ্রেন্ড Subham Kr Kar-র wall থেকে।

গল্পটা এইরকম…..

একটি মেয়ে দৌড়ে অনেক পিছিয়ে খেলা শেষ করল। তার বাবা যখন উচ্ছসিত হয়ে হাততালি দিচ্ছে, মেয়েটি বলল: বাবা! আমি দৌড়ে 15th হয়েছি !

একটি দৌড় :
কটি দৌড় : অনেক সফলতা

বাবা বললো : তুমি 1st হয়েছ 30 জনের মধ্যে !

মেয়ে: কি করে ?

তাকিয়ে দেখ তোমার পেছনে আরও 29 জন !

মেয়েটি খুশি হয়ে বললো ,কিন্তু বাবা সামনেও যে 14 জন রয়েছে !

বাবা বললো : তার কারণ ,ওরা আরও বেশি practice করেছে, পায়ের muscle শক্তপোক্ত করতে যত্ন নিয়েছে। পরেরবার তুমি আরও ভাল করে চেষ্টা কোরো, নিশ্চয়ই আরও ভালো হবে।

মেয়েটি খুশি হয়ে বললো, বাবা আমি খুব চেষ্টা করবো, অনেক practice করবো, আর পরের বার 1st হবো।

বাবা: All the best!

কিন্তু মনে রেখো,

পরেরবারও এই race বা কোনো না কোনো race এ কেউ না কেউ তোমার থেকে এগিয়ে থাকবে, আর কেউ না কেউ থাকবে তোমার থেকে পিছিয়ে।

সে নিয়ে কখনো মন খারাপ করো না।

বরং সামনে যারা থাকবে, তাদের সাফল্যে আনন্দ কোরো। কারণ তাদের মধ্যে সত্যিই এমন কিছু আছে যা তোমার চেয়ে আলাদা। মন থেকে appreciate কোরো।

যারা পিছিয়ে থাকবে, তাদের উৎসাহ দিও। তাহলে জীবনের বড় race টায় সবসময় এগিয়ে থাকতে পারবে।

নিজেকে কখনো অন্য কারও সঙ্গে তুলনা কোরো না,

জীবন একটা অদ্ভুত বিষয়। এখানে আমরা প্রতিমুহূর্তে নানা রকম শিক্ষা পায়। সেগুলিকে একটু বুঝে শুনে কাজে লাগাতে পারলে, আমাদের জীবনের রংটাই বদলে যেতে পারে। সেজন্যে… কোন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে, খুব মনোযোগ সহকারে, বিষয়টি সম্পর্কে ভাবনা চিন্তা করতে হবে। ঠান্ডা মাথায় চার দিক বিচার বিবেচনা করে, তারপরেও যদি মনে হয় আমার সিদ্ধান্ত সঠিক, তাহলে সেই পদক্ষেপ নেওয়া যেতেই পারে।

আমাদের মনে রাখতে হবে আমাদের যত ভাবনাচিন্তা। সেটা হতে হবে পদক্ষেপ নেবার আগে। একবার কোন বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হয়ে গেলে তখন এগুলো বা পেছনে উভয় ভীষণভাবে ক্ষতিকারক হয়ে ওঠে।

সাকসেস সকলের জন্য নয়

সেজন্য আমার অনুরোধ, কোন সিদ্ধান্ত নেবার আগে একবার নয়, হাজার বার ভাবে। ভাবুন।

Business সম্পর্কিত নতুন নতুন আর্টিকেল বা গল্প পেতে আমার blog ওয়েবসাইট biswassanjay.xyz এ চোখ রাখবেন।

ধন্যবাদ

Leave a Comment