জীবনে সফলতার 15 টি Strong টিপস

সফলতার অন্দরমহল

 সাফল্যের সন্ধানে
সাফল্যের সন্ধানে

অনেক আশা নিয়ে শুরু হয় মানুষের পথচলা । চলার পথে স্বাভাবিক নিয়মে এসে পড়ে বাঁক । সেই সমস্ত বাঁক মানুষ কে নানাভাবে শিক্ষা দেয় ।মানুষ তার থেকে কখনো শিক্ষা নেয়,কখনো বা তার থেকে শিক্ষা না নিয়ে, নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হয় । তখন দিশাহীন মানুষ হাতড়ে বেড়ায় সমস্যা সমাধানের রাস্তা । সফলতার চোরা গলি। সফলতার জন্য শুরু হয় পাগলামি।

আশাহত, ভেঙে পড়া মানুষ সহযোগিতা ও সহমর্মিতা পাওয়ার আশাতে হাত বাড়ায় তাদের দিকে, যাদেরকে সে একদিন সাহায্য করেছিল, অনুপ্রেরণা যুগিয়েছিলো জীবনের পথে এগিয়ে যেতে । কিন্তু সেই এগিয়ে যাওয়া মানুষেরা তাকে সাহায্য করা দূরে থাক—-তাঁকে দেখে মুখ বেকিয়ে হাসে, এড়িয়ে চলে।

কখনো আবার পরোক্ষভাবে তাকে অনৈতিক,অসৎ হবার পরামর্শ দেয়। তারা কায়দা করে বুঝিয়ে দেয় টাকাই জীবনের সবকিছু ।আদর্শ, ন্যায়-নীতি, মূল্যবোধ এসবই নাকি মূল্যহীন, বস্তাপচা জিনিস । তাদের বিশ্বাস করা বোধ বুদ্ধিগুলোই জোর করে তার মধ্যে ঢুকিয়ে দিতে চেষ্টা করে। সামিল করে নিতে চাই, তাদের দলে। কারণ দল ভারী হলে ক্ষমতার বৃদ্ধি পায়। অসৎ পথে চলতে হলে, প্রচুর ক্ষমতা প্রয়োজন।

সফলতার বিষয়ে আরো জানতে এখানে ক্লিক করুন

নীতিহীন মানুষগুলো, মানুষকে বোঝাতে থাকে, টাকা উপার্জনের জন্য নাকি অনেক কিছু ই বিসর্জন দেওয়া উচিত । যেমন ,ওই পাড়ার ওই কালো ,নাক দিয়ে পোটাপড়া ছেলেটা আজ সুচতুর ভাবে,অনেক টাকা কামিয়েছে, বাড়ি বানিয়েছে, দোকান করেছে, যে সরকারকে ফাঁকি দেওয়ার জন্য দু’মাস জেল খেটে এলো, মানুষকে ঠকানোর জন্য পুলিশে ধরে নিয়ে গেল, সে–ই নাকি আমাদের আদর্শ হওয়া উচিত । সত্যিই কি তা ই ?? তাহলে যারা আদর্শ মেনে, সৎ থেকে, বিপথে না গিয়ে সুস্থ স্বাভাবিক ভাবে বেঁচে থাকতে চাই, সে সবই কি মিথ্যা !!

অপরাধীর জীবন
অপরাধীর জীবন

পন্ডিত ব্যক্তিগণ বলতেন, বোকা ,বোধহীন আপনজনের চাইতে, বুদ্ধিমান শত্রুও ভালো।কারন অল্পবুদ্ধির মানুষ এবং অন্ধভক্ত ভীষণ ভয়ঙ্কর হয় । তারা পরিণামের কথা একবার ও ভাবে না। বলা যেতে পারে, তাদের পরিণাম ভাবার মতো শক্তি বা সামর্থ্য কোনোটাই থাকে না । তারা হয় পরশ্রীকাতর, নিজের কি আছে, সেটা একবার ও না ভেবে, সব সময় অন্যের দিকে তাকিয়ে থাকে ।মেতে থাকে অন্যের সমালোচনায়। এরা নিজে তো সব সময় হীনমন্যতায় ও পরশ্রীকাতরতায় ভোগে সেই সাথে, তাদের আশপাশের মানুষকেও সারাক্ষণ বিব্রত করতে থাকে। কখনো শান্তিতে জীবন যাপন করতে দেয় না।

এরা সেই বোকা হনুমানের মতো ,যে নিজের ঘুমন্ত প্রভুকে মাছির উপদ্রবের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য ধারালো তরবারি দিয়ে মাছি মারতে গিয়ে প্রভুকেই হত্যা করে বসে। আমাদের খুবই কাছের প্রিয়জনের অবস্থাও অনেকটা সেইরূপ । ফলে যা হবার তাই হচ্ছে ।আমরা ই ভুল করে হনুমানের হাতে ধারালো অস্ত্র তুলে দিয়ে, তার ফল সারা জীবন ধরে ভোগ করতে থাকি।

নিজের যোগ্যতার থেকে বেশি ক্ষমতা হাতে পেয়ে যাওয়াতে তারা ধরাকে সরা জ্ঞান করে। এদের একপা থাকে মাটিতে আর এক পা থাকে আকাশে। তখন এরা মানুষকে আর মানুষ ভাবে না। এই সময় এদেরকে কু পরামর্শ দেওয়ার একদল মানুষও জুটে যায়। যারা আরো ভয়ংকর। এরা আবার নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য ওই বোকা মানুষটিকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করতে থাকে।

সফলতার বিষয়ে আরো জানার জন্য এখানে ক্লিক করে আমার সঙ্গে থাকুন।

পণ্ডিতেরা বলেন ,মানুষের জীবনে খারাপ সময় আসার প্রয়োজন আছে । খারাপ সময় আপন-পর,ভালো-মন্দ সব চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় । সেই সময় আসার জন্য আমাদের অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে।অবিচল থাকতে হবে সত্যের আদর্শে। সেই ভালো মানুষের সাথে মেলা মেশার চেষ্টা করতে হবে।পড়তে হবে মনীষীদের রচনা। যা সারাজীবন আমাদের সঙ্গে থাকবে । কোনো অবস্থাতেই আমাদের অসৎ ও বিপথগামী হবার পরামর্শ দেবে না।

সফলতার সিঁড়ি
সফলতার সিঁড়ি

মনীষীদের কথাগুলো যদি আমরা খুব সহজে প্রকাশ করি, সেগুলো হবে এইরকম—-

  • 1.জীবনের বাঁক-ই আমাদের জীবনের প্রকৃত শিক্ষক
  • 2.সহযোগিতা বা উপকার করলেই যে ,সহযোগিতা পাবেন ,এমনটা নাও হতে পারে
  • 3. অনেকেই আপনাকে বোঝাবে ,” টাকাই জীবনের সবকিছু ।আদর্শ, ন্যায়-নীতি, মূল্যবোধ এসব মূল্যহীন ।
  • 4.আদর্শ মেনে, সৎ থেকে, বিপথে না গিয়ে সুস্থ স্বাভাবিক ভাবে বেঁচে থাকার নামই জীবন
  • 5.নির্বোধ আপনজনের চাইতে, বুদ্ধিমান শত্রুও ভালো
  • 6.যারা পরশ্রীকাতর, তারা জীবনে কখনোই সুখী হয় না
  • 7. অন্যের সমালোচনায় ব্যস্ত থাকলে, নিজের উন্নতি আটকে যায়
  • 8.আমরাই ভুল করে অযোগ্যকে প্রশ্রয় দিয়ে মাথায় তুলি
  • 9. মানুষের জীবনে খারাপ সময় আসার প্রয়োজন আছে
  • 10. ভালো বই এবং ভালো মানুষ কখনোই আমাদের অসৎ হতে বা বিপথগামী হতে পরামর্শ দেবে না
  • “11.ধৈর্য ধরো,শান্ত থেকো,
  • 12.কথা কম বলো
  • 13.খুব পরিশ্রম করে যাও
  • 14.সময় তোমারও আসবে
  • 15.সেদিন আর জবাব দিতে হবে না ।

জবাব সবাই এমনিতেই পেয়ে যাবে।”

Leave a Comment